KM Farhan https://www.kmfarhan.com/2021/04/blog-post.html

অসফল মানুষের বৈশিষ্ট

আসসালামুআলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহি ওয়াবারাকাতুহ, আমি প্রতিনিয়ত বিভিন্ন বিষয় ভিত্তিক গুরুত্বপূর্ণ পোস্ট করে থাকি নিয়মিত ভিজিট করার আমন্ত্রণ রইল আপনাকে।

আপনার সাথে আলোচনা করতে চাই কি কি কারনে বা কি কি বৈশিষ্ট্যের জন্য একজন মানুষের জীবনে অসফলতা আসতে পারে। বা কি কি কারণে একজন মানুষ জীবনে সফল হতে পারে না। 

কথায় আছে, 

অর্থাৎ, অভ্যাস আমাদের এতোটাই মূলোবান সম্পদ যে এটা আমাদের জীবনকে উন্নত করতে পারে আবার আমদের জীবনকে ধংশ করে দিতে পারে। 

আমি নিশ্চিত যে আপনি প্রায়ই দেখেছেন বা দেখতে পান টিভি বা ইন্টারনেট মাধ্যম এ সফল মানুষদের নিয়ে আলোচনা করতে। 

কিন্তু আলোচনা করা হয় না যে, কোন কোন কারণে মানুষ অসফল হতে পারে। 

তাই আজ আমরা আলোচনা করবো বক্তির মধ্যে কি কি বৈশিষ্ঠ থাকলে সে জিবনে অসফল হয়ে যায় বা সফল হতে পারে না। 

আমি বুঝতে পেরেছি আপনার মধ্যে সফল হওয়ার তীব্র আকাংক্ষা রয়েছে, তাছাড়া নিশ্চয়ই আপনি এই পোষ্টটি পড়া সুরু করতেন না। আমি সুরা নাজম এ পড়েছি,"বান্দা তাই পায় যা সে চেষ্টা করে।" 

আমি আলোচনা সুরু করতে যাচ্ছি, যে যে বদঅবভ্যাস এর জন্য মানুষ সফল হতে পারে না।  

তাই আজ আমরা আলোচনা করবো বক্তির মধ্যে কি কি বৈশিষ্ঠ থাকলে সে জিবনে অসফল হয়ে যায় বা সফল হতে পারে না। 

আমি বুঝতে পেরেছি আপনার মধ্যে সফল হওয়ার তীব্র আকাংক্ষা রয়েছে, তাছাড়া নিশ্চয়ই আপনি এই পোষ্টটি পড়া সুরু করতেন না। আমি সুরা নাজম এ পড়েছি,"বান্দা তাই পায় যা সে চেষ্টা করে।" 

আমি আলোচনা সুরু করতে যাচ্ছি, যে যে বদঅবভ্যাস এর জন্য মানুষ সফল হতে পারে না। 

অসফল বক্তির উদাহরণ:

১, যারা অসফল তারা কখনো ভাবতেও পারেনি যে তারা কখনো সফল হতে পারবে।

এবং আমাদের পরিবেশ এর মানুষ গুলো এমন , তারা বাড়ির খায় আর লোকের সমালোচনা করে বেড়ায়। নিজেরতো কোন কিছু করার ক্ষমতাতো নেই এবং সে চায় সবাই তার মতো হোয়ে থাকুক।

আমাদের পরিবেশ আমাদের মাথায় ঢুকিয়ে দেয় যে,

বেশি টাকা ভালো নয় 

তোকে দিয়ে কিচ্ছু হবে না 

তুই পারবি না জীবনে কিছু করতে 

নানা রকম নেগিটিভ ওর্য়াড আমাদের মাথায় ঢুকিয়ে দেয়া হয়। 

২, অলসতা বা ঢিলেমি করা:

আমাদের মধ্যে এমন অনেক মানুষ রয়েছে যারা বলে। আমি এটা করবো - সেটা করবো। তারা অনেক বড় বড় জিনিস করবে বলে কিন্তু ছোট কিছুও সুরু করে না। 

তারা সুধু ভাবতেই থাকে, কিন্তু কিছুই সুরু করে না। তারা সুধু চিন্তা করে কিন্তু সিধান্ত নেয় না। সুধু চিন্তা করলেই হবে না তা করতে হবে। সুধু জানলেই হবে না তা করতে হবে।

আপনার কাছে ধনী হওয়ার বা সফল হওয়ার অনেক প্লান থাকতে পারে কোন কাজে দিবে না যদি না কাজটি সুরু না করেন বা বাস্তবে তা প্রোয়োগ না করেন। 

যদি আপনি ভাবেন, একদিন আপনা টাইম আয়েগা। ভাই আপনার দিন কখনোই আসবে না যদি এটা ভেবে বসে থাকেন। আপনার পছন্দ মত কনো কাজ আপনি যদি সুরু করেন তবে আপনার সামনে নানা সফল হওয়ার রাস্তা চলে আসবে। 

তাই ভাই আপনাকে বলবো, এটা বসে থাকার সময় না। এটা সুরু করার সময়। 

৩, শেখা বন্ধ করে দেয়া : 

সবচেয়ে বড় ভুলতো সেটাই যে আমরা সুধু প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাকেই যথেষ্ট মনে করি।

আপনি যত বেশি শিখবেন তত বেশি আয় করতে পারবেন। যেমন মনে করেন মহাকাশ এর শেষ নেই, শেষ চিন্তার। 

মহাকাশ এ লক্ষ কোটি তারা নিয়ে একটি পুঞ্জ এমন লক্ষ কোটি পুঞ্জ নিয়ে একটি ইউনির্ভাস, এমন লক্ষ কোটি ইউনির্ভাস নিয়ে একটি মাল্টির্পাস। 

একটু ফিল করেন মহাকাশ কতোটা বড়, ঠিক এমনই হলো শিক্ষা এর সুরু আছে শেষ নেই। 

সমাজের কিছু মানুষের মানশিকতা সম্পর্কে বলছি, মহাকাশের এই পুঞ্জ, ইউনির্ভাস, মাল্টির্পাস এতো কিছু সম্পর্কে যেনেও নিজেকে মনে করে, "আমি এখনো অনেক কিছুই জানি না। " আবার অন্যদিকে কিছু নিচু চিন্তা ধারার মানুষ মহাকাশের কিছু চাঁদ, তারা / গ্রহের নাম যেনেই নিজেকে অনেক বড় মনে করে।

অর্থাৎ, সমাজের কিছু মানুষ অতি সামান্য জ্ঞানের আধিকারি হয়েও নিজেকে মনে করে এক বিশাল পান্ডিত অর্জন করিয়াছে।এবং সে অনুযায়ী অন্যকে জ্ঞান দেয়। 

এই জন্য উচিত নিজেকে বোকা ভাবা এবং অন্যের মাধ্যমে নতুন কিছু জানার চেষ্টা করা। 

টিভি দেখা : 

টিভি আপনার ব্রেনকে একটা ময়লার স্তুপ বানিয়ে ফেলে, বিভিন্ন ও অপ্রয়োজনীয় ডাটা আপনার মেমোরিতে ইমপোর্ট করে দেয়। আপনি যখন টিভি দেখবেন তখন একটি এক ঘন্টার সিরিজ হয়ে যায় দেড় ঘন্টার। 

সফল ব্যক্তিরা কখনোই নির্দিষ্ট তথ্য জানা বাদে টিভি দেখে না। সেটা হতে পারবে সংবাদ।

আপনি যখন ইউটিউবে সময় দিবেন তখন আপনি যা চাবেন তাই ইউটিউব আপনাকে দেখাবে, কিন্তু অপরদিকে আপনি যখন টিভি দেখবেন টিভি যা চাবে আপনাকে তাই দেখতে হবে।

সঠিক খাবার না খাওয়া /  সঠিক সময়ে খাবার না খাওয়া :

সঠিক সময়ে খাবার খাওয়া, সঠিক খাবার খাওয়া, সঠিক পরিমাণে খাবার খাওয়া তিনটিই অতি গুরুত্বপূর্ণ।

আপনাকে জাস্ট এ বিষয়টা মনে করিয়ে দিলাম এটা অবশ্যই আপনাকে বিস্তারিত বলতে হবে না এর গুরুত্ব সম্পর্কে।

শরীর চর্চা না করা :

নিয়মিত শরীরচর্চা না করলে শরীরের কর্মদক্ষতা বৃদ্ধি পায় না এবং শরীর রোগপ্রতিরোধের ক্ষমতা হারিয়ে ফেলে। 

শরীর চর্চার গুরুত্ব অপরিসীম এটা সম্পর্কে আপনাকে বিস্তারিত আর বলতে হবে না অবশ্যই আপনাকে শুধু মনে করিয়ে দেওয়ার জন্য লেখা। 

ধন্যবাদ পড়ার জন্য বিভিন্ন বিষয়ে পোস্ট লেখা রয়েছে একবার ঘুরে দেখে নিতে পারেন হোম পেজে। 




অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

নটিফিকেশন ও নোটিশ এরিয়া